মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০২০

গ্রেপ্তার এড়াতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে সিদ্ধিরগঞ্জে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের নেতাকর্মীরা : সংঘর্ষের ঘটনায়- ২ টি মামলা দায়ের

 

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৬ নং ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়েরের পর অবশেষে গতকাল বুধবার আরও পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায়। বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি নাসিক ৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের সমর্থক ইয়াসমিন বাদী হয়ে নাসিক ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র ২ মতিউর রহমান মতিকে প্রধান আসামী করে ২৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

এদিকে মতির সমর্থক লিটন আহমেদ বাদী হয়ে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ও নাসিক ৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম মন্ডলকে প্রধান আসামীকে ৫৬ জনের নাম উল্লেখ করে পাল্টা অপর একটি মামলা দায়ের করেন। এদিকে পুলিশ বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় মঙ্গলবার দিনে ও রাতে আরও ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গতকাল বুধবার দুপুরে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি কামরুল ফারুক দুটি মামলা রেকর্ড হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও প্রত্যাক্ষদশী জানায়, রোববার আদমজী রেললাইন এলাকায় কেরামবোর্ড খেলাকে কেন্দ্র করে একাধিক মামলার আসামী আক্তার হোসেন ওরফে পানি আক্তার ও শাকিল নামে দুইজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে এ ঘটনার জের ধরে উভয় গ্রুপ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। শুর হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া।

আক্তার হোসেন ওরফে পানি আক্তার সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের আহ্বায়ক ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্যানেল মেয়র-২ মতিউর রহমান মতির সহযোগী অন্যদিকে শাকিল নাসিক ৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর এবং বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের সমর্থিত লোক বলে জানাগেছে। সংঘর্ষের পর নাসিক প্যানেল মেয়র-২ ও থানা যুবলীগের আহবায়ক মতিউর রহমান মতির কার্যালয়ে দুই পক্ষকে ডেকে এ সংঘর্ষের বিচার করেন কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি।

এ সময় মতিউর রহমান মতি তার লোকদের পক্ষ নিয়ে অপর পক্ষকে দোষারূপ করে বিচার করার অভিযোগে সাবেক কাউন্সিলর আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম মন্ডল সমর্থিত শাকিল ও তার সহযোগীরা এর প্রতিবাদ করতে থাকে।

এ সময় প্যানেল মেয়র মতিউর রহমান মতির উপস্থিতিতে পানি আক্তার ও তার গ্রুপের সদস্যরা চাপাতি, হকিস্টিক, রামদা, লোহার রড নিয়ে সিরাজমন্ডল সমর্থিত লোকদের উপর হামলা চালায় বলে সিরাজুল ইসলাম মন্ডল অভিযোগ করেন। এতে উভয়পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়। আহতদের নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এর মধ্যে বড় আইনুলের অবস্থা আশংকাজনক।

নাসিক প্যানেল মেয়র-২ মতিউর রহমান মতি জানান, সিগারেটে আগুন ধরানো কেন্দ্র করে আমার কর্মী আক্তার ও সাবেক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের কর্মী শাকিলগংদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরে আমার অফিসে এনে বিচার শালিসী করার সময় শাকিলের সহযোগীরা আক্তার ও তার লোকজনের উপর হামলা চালায় পরবর্তীতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা তাতীলীগের সভাপতি লিটন আহমেদের অফিস ভাংচুর করে।

নাসিক ৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর এবং বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম মন্ডল বলেন, ঘটনা সম্পর্কে আমি এবং আমার বড় ভাই জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মজিবর রহমান মন্ডল কিছুই জানিনা। মতির সহযোগী লিটন আহমেদ আমার কর্মীসহ আমার নামে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে বলে সাবেক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডল জানান। তিনি আরও জানান মতি কোরবানীর পশুর হাটের ইজারা নিতে না পেরে প্রতিশোধ হিসেবে আমাকেসহ আমার কর্মীদের বিরুদ্ধে মতি ও তার সহযোগীরা একের পর এক ষড়যন্ত্র করছে। এদিকে দুই পক্ষের দুটি মামলা এবং পুলিশ বাদী হয়ে আরেকটি মামলা দায়ের করার কারণে উভয় গ্রুপের নেতাকর্মীরা গ্রেপ্তার এড়াতে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এলাকায় পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares
error: Alert: Content is protected !!