মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০২০

জহুরা মেম্বারের নিয়ন্ত্রনে কাঁচপুরের পরিবহন চাঁদাবাজি

 

সোনারগাঁও প্রতিনিধি : ঢাকা-চট্রগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কাঁচপুরের গনপরিবহনের চাঁদাবাজি এখন জহুরা মেম্বারের নিয়ন্ত্রনে। লোকাল বাস মিনিবাস থেকে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে এরই মধ্যে জহুরা মেম্বার বাহিনীর একাধিক সদস্য র‌্যাব ও পুলিশের নিকট গ্রেফতার হয়ে কারাবাস করলেও থেমে গনপরিবহনের চাঁদাবাজি।

ইতিপূর্বে মহাসড়কে চাঁদাবাজ বিরোধী অভিযানের সময় র‌্যাব সদস্যরা সতর্কও করেছিলো কাঁচপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী সদস্য জহুরা ও তার বাবা আব্দুর রব মিয়াকে। কিন্তু র‌্যাব সদস্যরা সতর্ক করার পরও থেমে থাকেনি তাদেও চাঁদাবাজি। গত ১৩ জুলাই গনপরিবহনে চাঁদাবাজি করার সময় জহুরা মেম্বার বাহিনীর চাঁদাবাজ চক্র জনি ও বাপ্পীকে গ্রেফতার কওে সোনারগাঁও থানা পুলিশ। স্থানীয় আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে জহুরা মেম্বার ও তার বাবা আব্দুর রব মিয়া গনপরিবহনের চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রন করে আসছে।

খোঁজ নিয়ে একাধিক গণপরিবহন চালকদেও সাথে আলাপ করে জানা জানাগেছে, র‌্যাব সদস্যরা মহাসড়কে চাঁদাবাজ বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে সাইনবোড, শিমরাইল মোড়, কাঁচপুর, মদনপুর, মোগরাপাড়া, ভুলতা ও গাউছিয়াসহ বিভিন্ন পয়েন্ট শতাধিক চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করে। এসময় মহাসড়কের অন্যান্য পয়েন্টের ন্যায় কাঁচপুরের চিহিৃত পরিবহন চাঁদাবাজরাও গ্রেফতার এড়াতে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। চাঁদাবাজদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে জহুরা মেম্বার ও তার বাবা আব্দুর রব মিয়া গনপরিবহনের চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রন করে আসছে।

এ চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে সোনারগাঁ থানাধীন কাঁচপুর মোড় এলাকায় চলাচলরত বাস, ট্রাক, সিএনজি চালিত অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, লেগুনা, টেম্পু চালকদের কাছ থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক গাড়ি প্রতি থেকে ৫০ থেকে ৩০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করে আসছে। স্থানীয় চালকদের কাছ থেকে জানা যায় কোনো চালক চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তাদের মারধরসহ হুমকি দেওয়া হয়। গত ১৩ জুলাই গনপরিবহনে চাঁদাবাজি করার সময় জহুরা মেম্বার বাহিনীর চাঁদাবাজ চক্র জনি ও বাপ্পীকে গ্রেফতার কওে সোনারগাঁও থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় একটি চাঁদাবাজি মামলাও দায়ের করে পুলিশ। ঐ চাঁদাবাজি মামলায় জহুরা মেম্বারের ভাই জিয়াকে পলাতক আসামী করা হয়। এবিষয়ে কথা হলে কাঁচপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী সদস্য জহুরা বলেন, চাঁদাবাজির সাথে আমি জড়িত না। ষড়যন্ত্র করে আমার লোকজনকে ধরিয়ে দিচ্ছে একটি পক্ষ।

সোনারগাঁও থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন, আইজিপির নির্দেশ গণপরিবহনে কোন প্রকার চাঁদাবাজি করতে দেওয়া হবে না। সে যেই দলের হোক না কেন?

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares
error: Alert: Content is protected !!