মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০২০

শাহী মহল্লায় খোলা আকাশের নীচে কাপড়ের হলিডে বাজার

 

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পাগলা শাহীবাজার এলাকায় কবরস্থান মসজিদের সামনে খোলা আকাশের নীচে প্রতি শুক্রবার বিকেলে বসে এই হলিডে কাপড়ের বাজার। হাতের সামনে খোলা আকাশের নীচে এই বাজার থেকে সল্পমুল্যে কেনাকাটা করতে পেরে খুশি এলাকার সাধারণ মানুষ।

গত শুক্রবার (১০ জুলাই) বিকালে শাহীবাজার গিয়ে খোলা আকাশের নীচে কাপড়ের বাজার দেখে বেশ ভালই লাগল। জানতে ইচ্ছে হলো এই বাজার সম্পর্কে কে বসিয়েছে এই বাজার এখানে কোন চাঁদাবাজি হয় কি না চলে গেলাম বাজার এর ভিতর। জানতে চাইলাম দোকানদারদের কাছে কে বসিয়েছে এই বাজার এর দোকানদার গন বলেন এখানকার কবরস্থান ও) মসজিদের কমিটির লোকজন আমাদের কে বসার অনুমতি দিয়েছেন‌। কাউকে কোন চাঁদা দিতে হয় কি না জানতে চাইলে তারা বলেন না আমাদের কোন চাঁদা দিতে হয় না আমাদের কাছে কেউ কখনো কোন চাঁদা বা খাজনা চাই না তবে আমরা নিজেরাই স্ব ইচ্ছাই কিছু টাকা মসজিদে দান করি। এই দানের পরিমাণ কত জানতে চাইলে তারা বলেন আমাদের ইচ্ছা অনুযায়ী দান করি নির্ধারিত কোন পরিমাণ নেই তবে সকলে মিলে হয়তোবা ৪-৫ শ টাকা হতে পারে। বিষয়টি শুনে আরও ভালো লাগলো। কারণ এই যুগেও এখানে কোন চাঁদাবাজি হয় না।

সাধারণ মানুষের সাথে কথা বললে তারা বলেন এইখানে কাপড়ের বাজার হওয়ায় আমরা অনেক খুশি কারণ সল্পমুল্যে নিজেদের পছন্দমতো কাপড় কিনতে পারি কোন প্রকার হয়রানি ছাড়াই আমরা চাই সবসময় এখানে এই কাপড়ের বাজার বিদ্যমান থাকুক। কবরস্থান ও মসজিদ এর কমিটির লোকজন এর সাথে কথা বলে জানাযায় তারা বলেন মসজিদের কাজ চলছে প্রতি শুক্রবার বিকেলে এখানে কিছু কাপড়ের দোকান বসে দোকানদার গন নিজেদের ইচ্ছামত মসজিদে কিছু দান করেন। এই বিষয়ে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন এর সাথে কথা বলে জানাযায় তিনি বলেন কবরস্থান মসজিদের কাজ চলছে এখানে এই কাপড়ের বাজার বসায় বাজারের দোকানদারা মসজিদে কিছু দান করেন দানের টাকা মসজিদের কাজে খরচ হয় এইটা অত্যন্ত আনন্দের বিষয় আমি ব্যক্তিগতভাবে খুশি হয়েছি।

এই বিষয়ে কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোজাফ্ফর এর সাথে কথা বলে জানাযায় তিনি বলেন। কবরস্থান ও মসজিদ এর সামনের জায়গা টুকু মসজিদের টাকা দিয়েই ভরাট করা হয়েছিল ঈদগাহ বানানোর জন্য ঈদের নামাজ ওপড়ানো হত এখানে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা হওয়ার দরুন এই এলাকার পানি নিষ্কাশনের জন্য কাল খনন করার কারণে আর ঈদগাহ করা সম্ভব হয়নি এই জায়গায় কিছু অস্থায়ী কাপড়ের দোকান বসে প্রতি শুক্রবার কিছু টাকা দোকানদার গন মসজিদে দান করেন মসজিদের কাজ চলছে অনেক টাকার প্রয়োজন এই দানের টাকায় মসজিদের কাজ হচ্ছে এতে আমরা অনেক খুশি হয়েছি। এবিষয়ে ফতুল্লা থানা তাতীলীগের সভাপতি একেএম রফিকুল ইসলাম (লাল) এর সাথে কথা বলে জানাযায় তিনি বলেন আমরা এই এলাকার বাসিন্দা এলাকার কবরস্থান ও মসজিদের উন্নয়ন হোক এইটা আমরা সবাই চাই এই বাজারের দোকানদারদের দানের টাকা মসজিদের উন্নয়ন হচ্ছে এতে আমরা সবাই খুশি।

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares
error: Alert: Content is protected !!