বুধবার, ডিসেম্বর ২, ২০২০

ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে বালুবাহী বাল্কহেড ডুবে ৪জন শ্রমিক নিহত

 

ফতুল্লা প্রতিনিধি  : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে বালুবাহী বাল্কহেড ডুবে ৪জন শ্রমিক নিহত হয় ও বাল্কহেডের মাস্টারসহ দুইজন জীবিত উদ্ধার করেন ।

শুক্রবার (৩ জানুয়ারী) ভোরে ফতুল্লার ধর্মগঞ্জ চতলার মাঠ এলাকায়  বুড়িগঙ্গা নদীতে বালুবাহী বাল্কহেড ডুবে ৪জন শ্রমিক নিহত হয় ও বাল্কহেডের মাস্টারসহ দুইজন জীবিত উদ্ধার করা হয় ।

আর বাল্কহেডটির মাস্টারসহ দুজন সাঁতরে পারে উঠতে পেরেছেন নারায়ণগঞ্জের ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনার সংবাদ পেয়ে সেখানে জান ডুবে যাওয়ার বাল্কহেড সহ নিহত ৪ জন শ্রমিকের মরাদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলো ঝালকাঠির নলছেটির কান্দাবপুর এলাকার তৈয়ব আলীর ছেলে লুৎফর রহমান (৩৯), পিরোজপুরের কাউখালীর পূর্ব আমড়াঝুড়ি এলাকার মৃত আব্দুর রব তালুকদারের ছেলে মোস্তফা তালুকদার (৫৫), ফিরোজপুরের বটবাড়ির ছোট আরজি এলাকার রাশেদ হাওলাদারের ছেলে বাবু (১৮) ও বরিশালের বানাড়ীপাড়ার ইলুহার এলাকার মৃত আব্দুল হকের ছেলে মহিবুল্লাহ (৬০)। আর আহত হয়েছে বাল্কহেডের মাস্টার আমির হোসেন (৫৫) ও কুতুব উদ্দিন (২৯)।

বুড়িগঙ্গা নদীতে বাল্কহেড ডুবে চারজনের মৃত্যুর সংবাদে ঘটনাস্থলে ছুটে যান নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো: জসিম উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাহিদা বারিক, নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক আব্দুল্লাহ আরেফিন সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

এদিকে বাল্কহেড ডুবে নিহত হওয়া শ্রমিকদের প্রত্যেক পরিবারকে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে নগদ ২০ হাজার করে টাকা ও দুটি করে কম্বল দেন ইউএনও নাহিদা বারিক। এছাড়াও তিনি নিহতের পরিবারকে সমবেদনা জানান।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাহিদা বারিক জানান, বুড়িগঙ্গা নদীতে একটি নোঙর করা বাল্কহেড ডুবে ৪ জন শ্রমিক নিহত হওয়ার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে নিহতের খোজখবর নেয়া হয়। পরে নিহতের প্রত্যেক পরিবারকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে নগদ ২০ হাজার করে নগদ অর্থ প্রদান সহ দুটি করে কম্বল ও খাবার দেয়া হয়। এছাড়াও লাশ গুলো বাড়িতে নিয়ে যেতে এ্যাম্বলেন্স এর ব্যবস্থা করা হয়। বুড়িগঙ্গা নদীটি কেরানীগঞ্জ থানা এলাকার সিমানা হওয়ায় সেই থানা পুলিশ আইনী প্রক্রিয়া শেষ করে লাশ গুলো পরিবারের মাঝে হস্তান্তর করা হবে।

কেরানীগঞ্জ থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামরুল হাসান জানান, নিহতদের লাশ উদ্ধার করে আমার সিনিয়র অফিসারের সাথে আলোচনা করে আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লাশ গুলো নিহতের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। নিহতের পরিবারের পক্ষ হতে কোন মামলা মোকদ্দমা করবে না বলে জানিয়েছে।

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares
error: Alert: Content is protected !!