Home অপরাধ কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামালের সংবাদ সম্মেলন

কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামালের সংবাদ সম্মেলন

কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামালের সংবাদ সম্মেলন
কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামালের সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফতুল্লার রামারবাগে দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় গিয়াসউদ্দিন ওরফে কাইল্লা গেসু ও আজমত আলীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়েরের পর এবার সংবাদ সম্মেলন করেছেন একটি পক্ষের নেতৃত্বে থাকা ফতুল্লা থানা কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল সহ অন্যান্যরা।

রোববার (২৪ মার্চ) সাড়ে ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে রাজ্জাক বলেন, আমরা  ফতুল্লা থানা কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক স্পিড বোট ব্যবসায়ী মোস্তফা কামালের পরামর্শ নিয়ে থাকি। তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজামের অনুসারী। জাতীয় নির্বাচনে শাহ নিজামের হয়ে এমপির পক্ষে কাজ করায় আমার ছেলে আজিমের উপর ক্ষিপ্ত ছিলো গেসু। নির্বাচনের পর তাকে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়েছিলো । আজিমের নামে তিনটি মামলা দিছের ফাসানোর চেষ্টা করেছে সে। স্কুল কমিটিগুলোতে প্রভাব বিস্তার না করতে পেরেও আমাদের উপর ক্ষিপ্ত ছিলো সে এবং তার বাহিনী। এই পূর্ব শত্রুতার জেরেই তাঁরা বাইরের এলাকা থেকে এসে আমাদের রামারবাগে হামলা করেছে।

তিনি আরো জানান , আমরা ঝুট ব্যবসার সাথে জড়িত নয়। গিয়াসউদ্দিন ওরফে কাইল্যা গেসু, তার ছোট ভাই জুট ব্যবসায়ী আজমত, মুরাদ, রাজিব, নজরুল, জসীম ও হেলাল রামারবাগ এলাকায় নিজেদের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি বলেই দেশী ও বিদেশী অস্ত্র-সন্ত্র নিয়ে হামলা করেছে। তাঁরা রামারবাগে মাদকের একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলতে কাজ করছিলো। আমার পুত্র মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের ১ম বর্ষের ছাত্র। সে কিংবা আমি কেউই রাজনীতির সাথে জড়িতনা। আমরা শুধু মোস্তফা কামালের পক্ষে থাকাতেই এই হামলা করা হয়েছে। আমরা এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি করছি।

ফতুল্লা থানা কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল বলেন, এলাকায় হামলার পর ওসি মঞ্জুর কাদের তাকে ঘটনাটি জানায়। এরপর তিনি এলাকায় গিয়ে দেখেন আহতদের হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে। হামলাকারীদের কেউ ওইসময় ছিলোনা। কামাল বলেন, তিনি প্রত্যক্ষভাবে রাজনীতির সাতে জড়িতনা, স্পিড বোট বিক্রির ব্যবসা করেন ।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, আহত পরিবারের আত্মীয় মোঃ  আজিমের ফুফু সেলিনা আক্তার, রওশন আরা, নুর বান, চাচী শাহীদা আক্তার, রহিমা আক্তার ও শিল্পী দাস ও এলাকার ব্যক্তি বর্গ।

প্রসঙ্গত, ফতুল্লা থানা কমিনিউটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল ও বিএনপি সমর্থক তৈয়্যব মিয়া একটি পক্ষ ও আওয়ামীলীগ নেতা গিয়াসউদ্দিন এবং আজমত আরেকটি পক্ষ। দীর্ঘদিন ধরে তাদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার ও পূর্বশত্রুতা চলে আসছে। শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে তাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে দুই নারী সহ ১৫ জন আহত হয়। এছাড়া এলাকার সাধারন লোকজনের শতাধীক বাড়ি ও দোকান ঘর ভাংচুর করা হয়। সংঘর্ষের ঘটনায় এক পক্ষের মামলা হয়েছে। শুক্রবার রাতে সংঘর্ষের পর শনিবার (২৩ মার্চ) দুপুরে আহত আজিমের বাবা গফুর মিয়া নামের এক ব্যক্তি ওই মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় গিয়াসউদ্দিন ও আজমত সহ ২৫ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরো ৩০ জনকে আসামী করেন।

মামলায় আসামী করা হয় আজমত আলী, গিয়াসউদ্দিন গেসু, মনির হোসেন মুরাদ, রাজিব, সজিব, জুয়েল, খন্দকার শাওন, জসিম, আশ্রাফ, ফয়সাল, রিপন, নাঈম, দেলোয়ার, শাকিল, হ্নদয়, শহিদ, ইমন, সোহেল, সানি, রাজু, তাহের আলী, সোলেয়মান, রহিম বাদশা, শামীম, ডালিমসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২৫/৩০জন নাম লিপিবদ্ধ করা হয় ।

Shares
error: Alert: Content is protected !!