বিচারহীনতার কারণেই শিশু হত্যা, নির্যাতন, অপহরণ ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ

নারায়ণগঞ্জ কথা ডটকম : শিশু কিশোর মেলার স্কুল উৎসবে নারায়ণগঞ্জে অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বিচারহীনতার কারণেই শিশু হত্যা, নির্যাতন, অপহরণ ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে শিশু কিশোর মেলা নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত স্কুল উৎসব ২০১৯ আজ সকাল ১০ ট্ধাসঢ়;য় আলী আহাম্মেদ চুনকা পাঠাগার মিলনায়তনে উদ্বোধন করেন দেশের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।

বিকাল ৪ টায় শিশু কিশোর মেলা স্কুল উৎসব উদযাপন কমিটির আহŸায়ক মুন্নি আক্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলা ফোরামের সদস্য অসিত বরণ বিশ^াস, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নাসিরউদ্দিন প্রিন্স, স্কুল বিষয়ক সম্পাদক সজল বাড়ৈ, নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সুলতানা আক্তার, শিশু কিশোর মেলার সংগঠক রায়হান শরীফ।

 সকালে উদ্বোধনের পরে শিশু কিশোর মেলার একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী শহর প্রদক্ষিণ করে।অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, সরকারি দলের আশ্রয় প্রশ্রয়ে থাকা প্রভাবশালীদের অপরাধের বিচার না হওয়ার কারণেই দেশে হত্যা, ধর্ষণ, অপহরণ এগুলি বৃদ্ধি পেয়েছে।এ নির্মমতা থেকে রেহাই পাচ্ছে না কোমলমতি শিশু-কিশোররা। শিশু হত্যা-নির্যাতন-অপহরণ অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় রেকর্ড পরিমান বেড়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ভোট ডাকাতির মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে। জনগণের প্রতি তারা কোন দায়বদ্ধতা বোধ করে না। তাই সরকারের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় চলছে দুর্নীতি-লুটপাট।ব্যাংক লুট, শেয়ারবাজারে লুট, রূপপুর পারমানবিক কেন্দ্রের বালিশ চুরিসহ কত অভিনব দুর্নীতি মানুষকে দেখতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, লুটকারীদের স্বার্থে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ বেশ কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান সুন্দরবনে হচ্ছে যা বিশ^ হেরিটেজ সুন্দরবন ধ্বংস করবে। জাতীয় স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে দেশের স্থলভাগ ও সমুদ্রভাগের গ্যাস ক্ষেত্রসমূহ বিদেশী কোম্পানীর হাতে তুলে দিচ্ছে।

এরকম ভয়াবহ পরিস্থিতিতে অনেক সময় শিশুরাও পারে বড়দের পথ দেখাতে। কিছুকাল আগে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে শিশুরা রাষ্ট্র মেরামতের শ্লোগান নিয়ে এগিয়ে এসেছিল এবং রাষ্ট্রের অনেক অসংগতি তুলে ধরেছিল। দেশের সমস্ত গণতান্ত্রিক মানুষ তাতে অনুপ্রাণিত হয়েছে।