সোমবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

কিভাবে স্বাধীনতা রক্ষা পাবে

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :স্বাধীনতা অর্জন আর রক্ষা দুইটাই ভিন্নতা আছে। ব্রিটিশ অবসানের পর এদেশে ততকালীন পাকসেনারা ও পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী আমাদের শান্তি বিনষ্ট করার প্রয়াস চালায়। বঙ্গবন্ধু শেখ মজিব এর ডাকে সাড়া দিয়ে দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ করে, মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগে এই দেশ পাক শত্রু মুক্ত হয়।

১৯৭১-এর ২৫ মার্চের কালরাতে নিরস্ত্র বাঙ্গালীর ওপর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর ঝাঁপিয়ে পড়া, ২৬ মার্চ বাঙ্গালীর সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু এবং সবশেষে ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ের আনন্দ।
মাত্র নয় মাসের ব্যবধানে বিজয় ছিনিয়ে এনে এ দেশের বীরজনতা বুঝিয়ে দিল, ঐক্য ও ত্যাগ থাকলে বুলেট আর কামান দিয়ে কোনো জাতিকে দমিয়ে রাখা যায় না।

আমাদের মহান স্বাধীনতা অর্জনে যে শহীদেরা আত্মত্যাগ করেছেন, নিজেদের প্রাণ বাজি রেখেছিলেন যে মুক্তিযোদ্ধারা, গভীর শ্রদ্ধার সাথে তাঁদের স্মরণ করি। যেসব দেশ ও গোষ্ঠী মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের সাহায্য করেছে তাঁদের জানাই কৃতজ্ঞতা। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যাশা ছিল, যথা :——–

১। পরাধীনতার শৃক্মখল ছিঁড়ে শোষণমুক্ত একটি গণতান্ত্রিক স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা।
২। মানুষের মৌলিক অধিকারসমূহ তথা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা, স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও কর্মসংস্থান প্রভৃতি নিশ্চিত করে সমাজের সকল ক্ষেত্রে বৈষম্য দূর করা ।

৩। মুক্তচিন্তা চেতনায় সমৃদ্ধ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলা। ৪। সকল নাগরিকের জন্যে সামাজিক ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। ৫। ব্যক্তিস্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতাসহ মানবাধিকারসমূহ নিশ্চিত করা।
৬। বাঙ্গালীর নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতির আলোকে বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা করা।মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যাশার আলোকে আমাদের যথেষ্ট প্রাপ্তি রয়েছে, যদিও সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে আমাদের কাঙ্ক্ষিত অর্জন সম্ভব হয়েছে। আজ আমরা স্বাধীন জাতি হিসেবে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পেরেছি। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে আমরা মুক্ত স্বাধীন স্বদেশভূমি পেয়েছি, লাল সবুজের মধ্যে লাল বৃত্তে অাঁকা জাতীয় পতাকা পেয়েছি। অধিকার আদায়ের জন্যে আত্মসচেতন হওয়ার প্রেরণা দিয়েছে এই মুক্তিযুদ্ধে।

* সমাজ জীবনে ব্যক্তিস্বাধীনতা, নারীমুক্তি আন্দোলন, নারীশিক্ষা, গণশিক্ষা, সংবাদপত্রের বিকাশ, সর্বোপরি গণতান্ত্রিক অধিকার চেতনা ব্যাপকভাবে বিস্তৃতি লাভ করেছে। আমাদের সাহিত্যে বিশেষ করে কবিতা ও কথাসাহিত্যে যতটা ব্যাপ্তি পেয়েছে তার বড় অবদান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। গণসচেতনতামূলক গান, নাটক ও চলচ্চিত্র ব্যাপকভাবে রচিত হয়েছে স্বাধীনতার পর। 
তবে উল্লেখ্য যে, আশানুরূপভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কিংবা গৌরবগাঁথা সাহিত্যে আজো প্রতিফলিত করার লক্ষে বাংলাদেশ সরকার কাজ করে যাচ্ছেন। যে স্বপ্ন-আকাক্মখা সামনে রেখে মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল সেই স্বপ্ন সাফল্যের লক্ষ্যমাত্রা স্পর্শ আজ আমরা অনুভব করি। স্বাধীনতার পর বার বার সামরিক অভ্যুত্থান, হত্যা-রক্তপাতের মধ্য দিয়ে ক্ষমতা দখল, দেশী ও বিদেশী ষড়যন্ত্রকারীদের তৎপরতা, অর্থনৈতিক বৈষম্য, যুব সমাজের মধ্যে সৃষ্ট হতাশা, বেকারত্ব, জনস্ফীতি, আইন-শৃক্মখলার অবনতি, ঘুষ, দুর্নীতি ইত্যাদি অবক্ষয় স্বাধীনতার মূল লক্ষ্য বা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বিপন্ন হয়েছিলো আজ সেই খান থেকে আমরা বের হতে পেরেছি।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কার্যকলাপ বারবার সংঘটিত হচ্ছে প্রশাসনের ভেতর এবং বাইরে। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা আজ তাদার প্রাপ্য সম্মান এবং অধিকার দিয়েছেন বর্তমান সরকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের কারণে দেশের যুবসমাজ আজ ধ্বংসের হাত থেকে প্রত্যেক পরিবারের সচেতন হলে তাহলেই তাঁরা পথ খুজে পাবে।

রাজনৈতিক দ্বনদ্ব-কলহ, অপরদিকে অর্থনৈতিক দুর্দশা, শিক্ষা ক্ষেত্রে নৈরাজ্য ও সমাজ সেবার নামে নিজের স্বার্থ হাসিল এবং স্বেচ্ছাচারিতা যুব সমাজকে বিপথগামী যেনো না হয় সে দিকে লক্ষ রাখতে হবে ।

সমাজে সমাজ-বিরোধী ব্যক্তির যে সম্মান, যে প্রতিপত্তি, সেখানে একজন জ্ঞানী, সৎ মানুষের  মূল্য দিতে হবে। 

মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবোধ জাগিয়ে তুলতে হবে। স্বাধীনতা অর্জন খুবই গৌরবের ও আনন্দের ব্যাপার এবং স্বাধীনতা জাতীয় জীবনের অমূল্য সম্পদ। কিন্তু স্বাধীনতা অর্জন হলেই সংগ্রাম শেষ হয়ে যায় না বরং তখন বিজয়ী জাতির সামনে আসে স্বাধীনতা রক্ষার সংগ্রাম। এ সংগ্রামে আরো বেশী ত্যাগ-তিতিক্ষা ও শক্তি-সামর্থ্যের প্রয়োজন হয়। কারণ, স্বাধীন দেশের ভেতরে ও বাইরে শত্রুর অভাব নেই। এরা সুযোগের সন্ধানে সর্বক্ষণ তৎপর থাকে। যে কোন সময় সুযোগ পেলে হিংসাত্মক কার্যকলাপের মাধ্যমে স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে ধ্বংস করে দিতে চায়।

স্বাধীনতা রক্ষা ও ফলপ্রসূ করা স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে কঠিন ও দুরূহ কাজ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সত্যিকার অর্থে প্রতিষ্ঠা করতে এবং স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আমাদেরকে নিম্নবর্ণিত বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

১। জাতীয় ঐক্য নিশ্চিত করে তার মাধ্যমে অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক স্বনির্ভরতা অর্জন করতে হবে।
২। দেশপ্রেমিক গণতান্ত্রিক শক্তির সংঘবদ্ধ প্রয়াস ও রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রে আন্তরিক পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে হবে।
৩। দুর্নীতিমুক্ত কল্যাণমূলক শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
৪। মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত গৌরবগাঁথা আর আত্মত্যাগের ইতিহাস ভবিষ্যৎ বংশধরদের কাছে তুলে ধরতে হবে।
৫। মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ, লক্ষ্য ও চেতনা সমাজ এবং জাতীয় জীবনে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে হবে।
৬। রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।
৭। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসম্পন্ন অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।
৮। সকল ক্ষেত্রে কাজের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।
৯। সামাজিকভাবে স্বাধীনতাবিরোধী, খুনী ও যুদ্ধাপরাধীদের বয়কট করতে হবে।
১০। স্বাধীনতাবিরোধী, খুনী ও যুদ্ধাপরাধীদের আইনের আওতায় এনে অবিলম্বে বিচার নিশ্চিত করতে হবে।
১১। সকলকে দেশপ্রেম, সততা ও নিষ্ঠার সাথে স্বীয় দায়িত্ব পালন করতে হবে।
১২। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসমৃদ্ধ শিক্ষা সকলের জন্যে নিশ্চিত করতে হবে। ১৩। দেশের প্রতিটি মানুষের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের মহৎ লক্ষ্যসমূহ জাগ্রত করতে হবে।

১৪। সমাজের সর্বস্তরে মুক্তিযুদ্ধের মহান চেতনাকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। ১৫। গণতন্ত্র, গণতান্ত্রিক বিধিব্যবস্থা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে সকলকে সক্রিয়ভাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।
১৬। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবে যথাযথ মর্যাদা দিতে হবে। ১৭। নারীর অগ্রগতি নিশ্চিত করে, নারী ও পুরুষের সামাজিক বৈষম্য দূর করতে হবে।

১৮। অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পুষ্টি, কর্মসংস্থান ইত্যাদি সম্পর্কিত যাবতীয় ব্যবস্থা ও সুযোগকে দরিদ্র জনগোষ্ঠীসহ সকলের কাছে সহজলভ্য করতে হবে।
১৯। ব্যক্তি স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতাসহ মানবাধিকারসমূহ নিশ্চিত করতে হবে।
২০। বাঙ্গালীর নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতির আলোকে বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
২১। সর্বস্তরে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও সমৃদ্ধশালী অর্থনীতি গড়ে তুলতে হবে। ২২। প্রত্যেক নাগরিককে রাষ্ট্রের দেয়া অধিকার ভোগ করার পাশাপাশি নিজ নিজ দায়িত্ব ও কর্তব্য যথাযথভাবে পালন করতে হবে।

২৩। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে সততার সাথে সৎ ও যোগ্য ব্যক্তিকে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করতে হবে।
২৪। প্রত্যেককে রাষ্ট্রের প্রতি অনুগত থেকে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে হবে।
২৫। দেশ ও জাতির কল্যাণে সকলকে সর্বদা দলমতের ঊর্ধ্বে থাকতে হবে। ২৬। দেশের ও জনগণের চাহিদা মোতাবেক সর্বদা গণমুখী ভূমিকা পালন করতে হবে।
২৭। সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য, পুলিশ ও গণমাধ্যম কর্মীদের দক্ষ, কর্মনিষ্ঠ ও আধুনিক করে তোলার জন্যে যুগোপযোগী ও বিজ্ঞানসম্মত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।
২৮। সশস্ত্র বাহিনী, আইনশৃক্মখলার দায়িত্বে নিয়োজিত বাহিনী ও মিডিয়াকর্মীদের বিজ্ঞান ভিত্তিক আধুনিক অনুসন্ধান কিংবা তথ্য সংগ্রহ পদ্ধতির ব্যবহার করতে হবে।
২৯। রাষ্ট্র, সরকার ও জনগণের মধ্যে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।

৩০। দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সুদৃঢ় করতে এবং সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
৩১। সফল কূটনীতির মাধ্যমে বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বাড়াতে হবে। ৩২। দেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি প্রতিষ্ঠাসহ বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় এবং সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ে তুলতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সকলকে সততা ও দেশপ্রেমের সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। প্রত্যেক মানুষের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের লক্ষ্যসমূহ জাগ্রত করতে হবে। তাহলেই আমরা মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্নের স্বনির্ভর বাংলাদেশ গড়ে তুলতে পারব যদি আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করি ।

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares
error: Alert: Content is protected !!