সিদ্ধিরগঞ্জে ৩২ ছাত্রী ধর্ষণ ভন্ড শিক্ষক গ্রেফতার

 

নারায়ণগঞ্জ কথা ডটকম : আমি এমন ছিলাম না। শয়তান আমার ওপর ভর করেছে। শয়তানের প্ররোচনায় আমি এসব করেছি। আমি বড় অন্যায় করেছি। পাপ করেছি। এর জন্য আমি এককভাবে দায়ী। আমার স্ত্রী-সন্তান কোনো অন্যায় করেনি। তাদের সম্মান যাতে না যায়। আমি আমার মৃত্যুদন্ড চাই। ফতুল্লার বায়তুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসার ১২ জন শিশু ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত প্রধান শিক্ষক মাওলানা আল আমিন র‌্যাবের হাতে আটকের পর নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করে এসব কথা বলেছেন।
গ্রেপ্তারকৃত আল আমিন কুমিল্লার মুরাদনগরের দীঘিরপাড় ভুঁইয়াপাড়ার ভুঁইয়া বাড়ির রেনু মিয়ার সন্তান।  এর আগে গত বৃহস্পতিবার সকালে র‌্যাব-১১-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফতুল্লার ভুঁইগড় মাহমুদপুর পাকার মাথা এলাকার ওই মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষক মাওলানা আল আমিন (৩৫)কে গ্রেপ্তার করে। মাওলানা আল-আমিন ওই মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। এসময় গ্রেপ্তারকৃত আল আমিনের মোবাইলফোন ও তার ব্যবহৃত কম্পিউটার থেকে একাধিক পর্নো ছবি ও ভিডিও জব্দ করা হয়।
তার বিরুদ্ধে নির্যাতিত শিক্ষার্থীদের পরিবারের পক্ষ থেকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা এবং অপর মামলাটি র‌্যাবের পক্ষ থেকে পর্ণোগ্রাফি আইনে দায়ের করা হয়েছে।  শুক্রবার সকালে ফতুল্লা থানায় এ মামলা দুটি দায়ের করা হয়।
তবে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ মিজমিজি কান্দাপাড়া এলাকার অক্সফোর্ড হাইস্কুলের একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন আরিফ। রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করা হলে তিনি দোষ স্বীকার করেন। নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ুন কবীরের আদালত এ জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সেলিম মিয়া জানান, অক্সফোর্ড হাইস্কুলের একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে জনতার গণধোলাইয়ের পর গ্রেফতার শিক্ষক আশরাফুল আরিফ ও মদদদাতা প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকারের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আলাদা দু’টি মামলা দায়ের করা হয়। আরিফ মাদারীপুর সদর উপজেলার শিলখাড়া গ্রামের বাসিন্দা। 

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares