বন্দর উপজেলা নির্বাচন পরিদর্শন করলেন নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার

 

নারায়ণগঞ্জ কথা ডটকম : আসন্ন বন্দর উপজেলা নির্বাচনের ৫ম ধাপে যুব মহিলা লীগ নেত্রী নুরুন্নাহার সন্ধ্যা হাঁস ৯টা থেকে ভোট গ্রহন বিকেল ৫টা পর্যন্ত স্বাভাবিক ভোট দেন জনগণ।
বন্দর উপজেলা নির্বাচনের ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ১ লাখ ১৪ হাজার ৫৫৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৫৮ হাজার ও নারী ভোটার সংখ্যা ৫৬ হাজার ২৬৪ জন। সেই সাথে ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৫৪টি।


ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন কালে জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বলেন, বন্দর উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রতিটি ইউনিয়নে ২টি করে এবং কলাগাছিয়া ইউনিয়নে ৩টি করে মোট ১১টি মোবাইল পুলিশ টিম রয়েছে। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশ, আনসার ও গ্রাম পুলিশ পর্যাপ্ত পরিমানে রয়েছে। ষ্ট্রাইকিং পার্টি রয়েছে ২টি এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রয়েছে। সেই সাথে নির্বাচন উপলক্ষ্যে সদরে একটি স্ট্যান্ডবাই রাইটফারমেশন মুভমেন্টে রয়েছে। পুলিশ, আনসার ও গ্রাম পুলিশ সহ মোট ১ হাজার ৮৯ জন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন রয়েছে যেনো নির্বাচনে কোনো অনিয়ম না হয়।

বন্দর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে কোনো প্রতিদ্বন্ধী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্ধীতায় চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী এম.এ রশিদ।ভাইস চেয়ারম্যান পদে জাতীয় পার্টি নেতা ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ সানু উড়োজাহাজ, আকতার হোসেন বই, নুরুজ্জামান তালা, হাফেজ পারভেজ হাসান চশমা ও শহীদুল ইসলাম জুয়েল টিউবওয়েল প্রতীক পেয়ে প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। এদিকে নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান নারী ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা আকতার কলস,যুব মহিলা লীগ নেত্রী নুরুন্নাহার সন্ধ্যা হাঁস ও সালিমা হোসেন শান্তা ফুটবল প্রতীক পেয়ে প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন ।

 

নারায়ণগঞ্জ কথা এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Shares