কুচক্রি মহলের ষরযন্ত্রের স্বীকার ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী খোকন ভেন্ডার

নারায়ণগঞ্জ কথা : গত ২৩ শে ডিসেম্বর ২০২১ ইং তারিখ বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রকাশিত কয়েকটি পত্রিকায় দৈনিক প্রতিদিনের নারায়ণগঞ্জ, ইয়াদ, ডান্ডিবার্তা, শীতলক্ষা ও সচেতন পত্রিকায় কাউন্সিলর প্রার্থী খোকন ভেন্ডারের বিরুদ্ধে কোটি টাকা আতœসাতের অভিযোগ শিরো নামে সংবাদটি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে।

উক্ত সংবাদের শিরোনাম ও বিষয়বস্তুতে আমাকে জরিয়ে প্রকাশিত সংবাদটি মনগড়া, কাল্পনিক, মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। একটি কুচক্রী মহল আমার সামাজিক, পারিবারিক, ব্যবসায়িক ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে ইর্ষান্বিত হয়ে আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করতে এবং আমার সুনামকে চিরতরে নষ্ট করার জন্য সাংবাদিক ভাইদেরকে ভূল তথ্য দিয়ে সংবাদটি প্রকাশ করেছে।

সংবাদে সত্যের সাথে বাস্তবের কোন মিল খুজে পাওয়া যাবে না। প্রকৃত সত্য এই যে, জৈনিক আক্তার নূর গংরা আমার চেম্বার সুরুজ্জামান টাওয়ার হতে আমাকে ডেকে এনে বন্দও চিতাশাল রোডস্থ দুলাল কাউন্সিলর এর অফিসে বসাইয়া জোর পূর্বক ভয়ভীতি দেখাইয়া ও প্রান নাশের হুমকি দিয়া আমার থেকে খালি ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়া আমাকে বের করে দেয়। তারা আমার থেকে কোন টাকা পয়সা পাবে না। তারপরে গত ২৩ তারিখে স্থানীয় পত্রিকায় সংবাদ দেশে জানতে পারি জৈনিক হাসনাত শাওন নামের ব্যাক্তি আমার থেকে এক কোটি পাঁচ লক্ষ টাকা পাবে মর্মে বন্দর থানায় লিখিত অভিযোগ করে। আমার ধারনা আমার থেকে জোর পূর্বক স্বাক্ষর নেওয়া ষ্ট্যাম্পে তার মধ্যে উক্ত টাকা বসিয়ে আমাকে বøাক মেইল করার পায়তারা করিতেছে।

কে এই হাসনাত শাওনের মালিক? এলাকাবাসি জানতে চায়? শাওন এতো টাকার মালিক কি করে হলো? তার পিতা ছালাম একজন পান দোকানদার। উক্ত ষ্টাম্পে স্বাক্ষর নেওয়ার ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে আমি বন্দর থানায় একটি সাধারন ডায়রী করি। যাহার নং-১০৯, তারিখ ২/১২/২০২১ইং।

উল্লেখ্য যে, ০১৭৯৪৭৫২২৫৮ এই নাম্বার থেকে আমাকে ফোন করে বলে টাকা দিতে যদি না দেই তাহলে আমার সম্পত্তি ঐ ষ্ট্যাম্পে লিখিয়া নিবে বলে হুমকি প্রদান করে। বর্তমানে আমি ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী। আমার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করার জন্য গত ২১/১২/২০২১ইং তারিখ রাতে আমার বাসায় এসে আক্তার নূর গংরা আমাকে মারপিট করে বৈদুতিক লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়াগায় পিটিয়ে যখম করে রক্তাক্ত করে এবং প্রান নাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়। বর্তমানে আমি চিকিৎসাধীন আছি। উক্ত মারপিটের ঘটনায় আমার স্ত্রী রোনসানা আক্তার বাদী হয়ে আক্তার নূর সহ ৪০/৫০ জনকে অজ্ঞাত নামা করে বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং-২৮, তারিখ২৩/১২/২০২১ইং।

পরিশেষে সাংবাদিক ভাইদের সংবাদ প্রকাশ করা পূর্বে সংবাদের সত্যতা যাচাই করে প্রকাশ করার আহবান জানাচ্ছি। সেই সাথে উক্ত প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

সর্বশেষ